মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

প্রকল্প

১। এন.এ.টি.পি (ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রজেক্ট)

২। আইপ্যাক (সমন্বিত সহ-ব্যবস্থাপনা প্রকল্প)

৩। মrস্য স্ংরক্ষণে ফরমালিনের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ ও গণসচেতনতা সৃষ্টি প্রকল্প

 

প্রকল্প সমূহের স্ংক্ষিপ্ত বর্ণনা

 

১। এন.এ.টি.পি (ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রজেক্ট)

(জাতীয় কৃষি প্রযুক্তি প্রকল্প)

ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রজেক্ট (এনএটিপি) বিশ্ব ব্যাংক এবং ইফাদের অর্থায়নে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন একটি প্রকল্প। সার্বিক স্য সম্পদের উপাদন বৃদ্ধি হ্রাস এবং কৃষকের মুনাফা বৃদ্ধিসহ আর্থ-সামাজিক ব্যবস্থার উন্নয়নই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য। উক্ত উদ্দেশ্য অর্জনের লক্ষ্যে মস্য অধিদপ্তর সম্প্রসারণ সেবা বিকেন্দ্রীকরণ এবং এর বহুমাত্রিক রুপ প্রদাণের জন্য কাজ করছে। এ পদ্ধতিতে গ্রামগঞ্জে সিআইজি গঠন করে তাদের অংশগ্রহণের মাধ্যমে এলাকাভিত্তিক মস্য চাষের সমস্যা নিরুপণ করে তার আলোকে স্থানীয় মস্য চাষ প্রযুক্তি সম্প্রসারণ পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। একেবারে তৃণমূল পর্যায়ে সুসমন্বিতভাবে জনগণের চাহিদা এবং প্রযুক্তিনির্ভর সম্প্রসারণ সেবা শক্তিশাল এবং বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে বহুমুখী এবং দক্ষ সম্প্রসারণ ব্যবস্থা গড়ে তোল প্রকল্পের প্রধান উদ্দেশ্য।

জাতীয় কৃষি প্রযুক্তি প্রকল্প মস্য অধিদপ্তর অংশের বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্প বাস্তবায়ন ইউনিট স্থাপন করে মাঠ পর্যায়ে জনবল এবং অন্যান্য সুযোগ সুবিধার সংস্থান করা হয়েছে।

উপজেলা পর্যায়ে সম্প্রসারণ সেবা বিকেন্দ্রীকরণ, গ্রাম পর্যায়ে Common Interest Group (CIG) গঠন, প্রদর্শনী খামার স্থাপন এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে Local Extension Agent for Fisheries (LEAF) ইত্যাদি সম্বলিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়েছে। Local Extension Agent for Fisheries (LEAF) বাছাইয়ের ক্ষেত্রে প্রতি ইউনিয়নে ১ জন মস্য কার্যক্রমে জড়িত ব্যক্তিকে লিফ হিসাবে নির্বাচন করা হয়েছে। যিনি মস্য চাষের সাধারণ সম্প্রসারণ সেবা মস্য চাষিদের দোড়গোড়ায় পৌছে দেবে। এতে করে মাঠ পর্যায়ে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার মস্য চাষিদের জন্য সহজতর হবে।

প্রকল্পের সংক্ষিপ্ত বিবরণঃ

১। প্রকল্পের নামঃ জাতীয় কৃষি প্রযুক্তি প্রকল্প (মস্য অধিদপ্তর অংশ)

২। বাস্তবায়নকারী সংস্থাঃ মস্য অধিদপ্তর

৩। প্রশাসনিক মম্ত্রণালয়ঃ মস্য প্রাণীসম্পদ মন্ত্রণালয়

৪। প্রকল্পের মেয়াদকালঃ জুন ২০১৩ ইং পর্যন্ত

প্রকল্পের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্যঃ

ক) চাহিদা এবং প্রযুক্তি নির্ভর তৃণমূল পর্যায়ে সম্প্রসারণ সেবা শক্তিশালী এবঙ বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে বহুমূখী এবং দক্ষ সম্প্রসারণ ব্যবস্থা গড়ে তোলা।

খ) প্রকল্পাধীন উপজেলা পর্যায়ে সম্প্রসারণ পরিকল্পনা এবং কর্মসূচী প্রণয়নে সহায়তাকরণ

গ) প্রকল্পাধীন উপজেলা পর্যায়ে অর্থ ব্যবস্থাপনা এবং কর্মসূচী বাস্তবায়েন দক্ষতার উন্নয়ন

ঘ) পরিকল্পনা এবং সম্প্রসারণ কর্মসূচীতে চাষিদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে চাষিদের সংগঠন Common Interest Group (CIG) এবং  Producers Organization গঠন

ঙ) গবেষণা-সম্প্রসারণ-চাষিদের মাঝে যোগাযোগ জোরদারকরণ

চ) ক্রয় এবং অর্থ ব্যবস্থাপনার মান উন্নয়ন

ছ) অধিদপ্তরের প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতা এবং জনবলের দক্ষতা বৃদ্ধিসহ বিভিন্ন সরকার এবং বেসরকারি সংস্থার মাঝে সমন্বয় বৃদ্ধিকরণ।

প্রকল্পের সম্ভাব্য প্রভাবঃ

প্রকল্প এলাকার প্রধান প্রধান ফসলে উপাদন শতকরা ১০ ভাগ বাড়বে। প্রকল্পভূক্ত চাষিদের আয় শতকরা ২০ ভাগ বৃদ্ধি পাবে। প্রায় শতকরা ৬০ ভাগ সিআইজি চাষি সম্প্রসারিত নতুন প্রযুক্তি গ্রহণ এবং ব্যবহার করবে। পাশিপাশি প্রকল্পের সফল বাস্তবায়ন শেষে প্রকল্প এলাকায় দারিদ্রতা শতকরা ৫ ভাগ হ্রাস পাবে।

ফিয়াকঃ

ফিয়াক ইংরেজী নাম FIAC Farmers Information and Advice Center (চাষি তথ্য পরামার্শ কেন্দ্র) এর সংক্ষিপ্ত রুপ এনএটিপি কর্তৃক সম্প্রসারণ ব্যবস্থার বিকেন্দ্রীকরণের লক্ষ্যে পরিচালিত কার্যক্রমের এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ বর্তমানে সপ্তাহের ১ দিন লীফ ফিয়াকে বসে স্থানীয়ভাবে চাষিদের মাছ চাষ সম্পর্কে বিভিন্ন পরামার্শ প্রদান করে থাকেন

অত্র উপজেলার সর্বশেষ অবস্থাঃ

কর্ম এলাকাঃ কালিয়াকৈর উপজেলা

ইউনিয়নঃ ৯ টি

পৌরসভাঃ ১ টি

সিআইজিঃ ২০ টি (প্রতি ইউনিয়নে ২ টি)

সিআইজি সদস্য সংখ্যাঃ ৩০০ জন

পুরুষ-২৪০ জন

মহিলা-৬০ জন

লীফঃ (স্থানীয় স্য সম্প্রসারণ প্রতিনিধি)-১০ জন

(২০০৯):

সিআইজির দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ ০২ দিন

পুরুষ-২৪০ জন

মহিলা-৬০ জন

প্রদর্শনী পুকুর স্থাপনঃ উপজেলার ০৮ টি ইউনিয়নে স্থানীয় জনগোষ্টিকে উসাহিত করার জন্য প্রকল্পের প্রযুক্তি মোতাবেক বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্পের আর্থিক সহায়তায় ০৮ টি রুই জাতীয় মাছের মিশ্র চাষ এবং  মনোসেক্র তেলাপিয়ার প্রদর্শনী পুকুর স্থাপন করা হয়।

প্রদর্শনী পুকুর স্থাপন ০৮ টি

মাঠ দিবসঃ এলাকার বিভিন্ন চাষীকে বাস্তবায়িত প্রদর্শনী পুকুরের মাছ চাষ কার্যক্রমের সম্পর্কে অবগত এবং বাস্তবায়নে উসাহিত করা হয়।

মাঠ দিবস- ০৮ টি

কৃষি প্রযুক্তি মেলা- ০১ টি

২০১০ঃ

সিআইজির রিফ্রেসার উন্নয়ন প্রশিক্ষণ-০১ দিন

পুরুষ-২৪০ জন

মহিলা-৬০ জন

সিআইজি লিডারস টেকনোলজী প্রশিক্ষণ-০৩ দিন

পুরুষ-৫৬ জন

মহিলা-০৪ জন

প্রদর্শনী পুকুর স্থাপনঃ উপজেলার ০৯ টি ইউনিয়নে স্থানীয় জনগোষ্ঠিকে উসাহিত করার জন্য প্রকল্পের প্রযুক্তি মোতাবেক বাস্তবায়নের জন্য প্রকল্পের আর্থিক সহায়তায় ০৯ টি রুই জাতীয় মিশ্র চাষ এবং মনোসেক্র তেলাপিয়ার প্রদর্শনী পুকুর স্থাপন করা হয়।

প্রদর্শনী পুকুর স্থাপনঃ ০৯ টি

অভিজ্ঞতা বিনিময় সফরঃ প্রকল্পের লীফ, সিআইজি সভাপতি এবং উপজেলা টিমসহ ৩৭ জনের একটি দল ০১ দিনের সফরে ময়মনসিংহ জেলা ত্রিশাল উপজেলার বিভিন্ন পুকুর, বেসরকারী হ্যাচারী কার্যক্রম পরিদর্শন করে অভিজ্ঞতা অর্জন করে।

কৃষি প্রযুক্তি মেলা- ০১ টি

ফিয়াক (ফারমারস্ ইনফরমেশন এন্ড এ্যাডভাইস সেন্টার)ঃ

উপজেলার নতুন ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে (০৪) টি ফিয়াক স্থাপন করা হয়েছে। ফুলবাড়ীয়া, চাপাইর, মধ্যপাড়া এবং ঢালজোড়া ইউনিয়ন পরিষদে স্থাপিত ফিয়াক সেন্টারে লীফ প্রতি সপ্তাহের এক দিন (বুধবার) দিনব্যাপী স্থানীয মস্য চাষীদের বিভিন্ন বিষয়ে পরামার্শ প্রদান করে থাকেন। মস্য সংক্রান্ত সেবাদানের জন্য উপজেলা টীম এবঙ মাঝে মধ্যে পরিদর্শন করে থাকে।

এক নজরে জাতীয় কৃষি প্রযুক্তি প্রকল্প (মস্য অধিদপ্তর অংশ) এর বাস্তবায়িত কার্যক্রমের প্রতিবেদন

উপজেলা – কালিয়াকৈর                                            জেলা-গাজীপুর        

ক্র নং

কার্যক্রম

সংখ্যা/জন

প্রশিক্ষণের মেয়াদকাল

প্রশিক্ষণার্থীর সংখ্যা

প্রশিক্ষণ

মন্তব্য

২০০৯-২০১০

২০১০-২০১১

 

পুরুষ

মহিলা

লক্ষ্যমাত্রা

অর্জন

লক্ষ্যমাত্রা

অর্জন

 

ইউনিয়ন (পৌরসভা)

১০ টি

-

-

-

-

-

-

-

 

সিআইজি

২০ টি

-

-

-

-

-

-

-

 

লিফ

১০ জন

-

০৮

০২

-

-

-

-

 

সিআইজর দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ

৩০০ জন

০২ দিন

২৪০

৬০

২০

২০

-

-

 

সিআইজির রিফ্রেসার প্রশিক্ষণ

৩০০ জন

০১ দিন

২৪০

৬০

-

-

২০

২০

 

সিআইজির লিডারস টেনোলজী প্রশিক্ষণ

২ ব্যাচ

০৩ দিন

৫৬

০৪

-

-

০২

০২

 

প্রদর্শনী

১৮ টি

-

-

-

০৯

০৯

০৯

০৯

 

মাঠ দিবস

১৮ টি

-

-

-

০৯

০৯

০৯

০৯

 

অভিজ্ঞতা বিনিময় সফর

০১ টি

-

-

-

-

-

০১

০১

 

১০

কৃষি প্রযুক্তি মেলা

০২ টি

-

-

-

০১

০১

০১

০১

 

 

প্রদর্শনীর ফলাফলঃ

ক্র নং

প্রদর্শনীর ধরণ

                  ফলাফল

মন্তব্য

অর্থ বছর (২০০৯-২০১০)

অর্থ বছর (২০১০-২০১১)

অর্থ বছর (২০১১-২০১২)

প্রদর্শনীর সংখ্যা

পাদন (কেজি/হেঃ)

প্রদর্শনীর সংখ্যা

পাদন (কেজি/হেঃ)

প্রদর্শনীর সংখ্যা

পাদন (কেজি/হেঃ)

০১

মনোসেক্স তেলাপিয়ার একক চাষ

০১ টি

৬০০০

০৮ টি

৫৬৮০

০৯ টি

৭৭৭০

 

 

২। আইপ্যাক (IPAC)

Integrated Protected Area Co-management

 

আইপ্যাক নদী এবং বিল এলাকায় অভয়াশ্রম স্থাপনের মাধ্যমে স্য সম্পদ বৃদ্ধি, বিলুপ্ত প্রায় মস্য সম্পদ পুনরুদ্ধার, পরিবেশের ভারসাম্য সংরক্ষণ এবং মস্য সম্পদ ব্যবহারকারীদের মধ্যে সহজ শর্তে ঋণ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। ইউএসআইডি এবং বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে মাচ্ প্রকল্প পরিচালিত হচ্ছিল। কালিয়াকৈর উপজেলায় ০২ টি বিল এবং ০২ টি নদীতে এর কার্যক্রম চলছে। ২০০৮ সালে মাচ্ প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়ে যাবার পর আইপ্যাক এ কার্যক্রমের মনিটরিং করছে। উপজেলা মস্য দপ্তর এবং উপজেলা প্রশাসনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে এর কার্যক্রম চলছে। সহায়ক প্রতিষ্ঠান হিসেবে এখানে ০৪ টি RMO আছে। ক) আলুয়া বিল সম্পদ ব্যবস্থাপনা কল্যাণ সংস্থা খ) তুরাগ নদী সম্পদ ব্যবস্থাপনা কল্যাণ সংস্থা গ) গোয়ালীয়া নদী সম্পদ ব্যবস্থাপনা কল্যাণ সংস্থা এবং ঘ) মকশ বিল সম্পদ ব্যবস্থাপনা কল্যাণ সংস্থা। উক্ত প্রকল্পে ২৩ টি অভয়াশ্রম আছে। এই ২৩ টি অভয়াশ্রমের মোট আয়তন-১১.৮ হেক্টর। এ কার্যক্রমের ফলে অত্র এলাকাসহ আশে পাশের এলাকায় দেশীয় প্রজাতির বিলুপ্তপ্রায় মাছের বংশ বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং পাশাপাশি দেশীয় মাছের উপাদন বহুগুণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রতিবছর RMOগুলো অভয়াশ্রমগুলোতে সংস্কার, মস্য সংরক্ষণ আইন বাস্তবায়ন, সচেতনতা সভা, জিনি প্রতিরোধ ইত্যাদি কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে থাকে।

কর্ম এলাকায় RMO- ০৪ টি

এফআরইউজি-০৩ টি

আলুয়া আরএমও

কর্মএলাকা- আলুয়া বিল

সদস্য সংখ্যা-১৩৯ জন

অভয়াশ্রম-০৭ টি

স্থায়ী অভয়াশ্রম-০১ টি

তুরাগ আরএমও

কর্মএলাকা- গোয়ালিয়া নদী

সদস্য সংখ্যা-৮৪ জন

অভয়াশ্রম-০৫ টি

গোয়ালিয়া আরএমও

কর্মএলাকা- গোয়ালিয়া নদী

সদস্য সংখ্যা-৮৪ জন

অভয়াশ্রম-০৫ টি

আরএমও কার্যক্রম

১। সচেতনতা সভা

২। আন্তর্জাতিক দিবস উদযাপন (যেমন-ধরিত্রী দিবস, পরিবেশ দিবস, নারী দিবস ইত্যাদি)

৩। স্য সংরক্ষণ আইন বাস্তবায়ন

৪। মস্য অভয়াশ্রম স্থাপন ও সংরক্ষণ

৫। পানি দূষণ প্রতিরোধে সভা, মানববন্ধন কর্মসূচী, র‌্যালী, পানি পরীক্ষা ইত্যাদি।

৬। ক্যাচ মনিটরিং।

৭। বনায়ন।

৮। পরিবেশবন্ধব চুলা স্থাপনে স্থানীয় জনগোষ্ঠিকে উসাহিত করা এবং কম মূল্যে বিতরণ।

এফ.আ.ইউজি’র কার্যক্রম

১। দিবস উদযাপন

২। সচেতনতা সভা

৩। সম্পদ ব্যবহারকারীদের মধ্যে সহজ শর্তে ঋণ প্রদান

৪। বিভিন্ন বিষয়ে কারীগরি সহায়তা প্রদান।

৩। rস্য স্ংরক্ষণে ফরমালিনের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ ও গণসচেতনতা সৃষ্টি প্রকল্পt

 গৃহীত কার্যক্রম সমূহ:

কালিয়াকৈর ৎস্য আড়তে আড়তদার, মrস্যজীবী এবং মাছ বিক্রেতাদের সমন্বয়ে সচেতনতা সভা

২। মrস্য আড়তদার এবং মাছ বিক্রেতাদের প্রশিক্ষণ প্রদান

৩। মোবাইল কোর্ট পরিচালনা